সোমবার   ১৮ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৪ ১৪২৬   ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

amar24.com|আমার২৪
সর্বশেষ:
এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রের ২শ’ গজের মধ্যে জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ ‘এরশাদের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে’ ওয়ান ইলেভেনে আশরাফের বলিষ্ঠ ভূমিকা ছিল : প্রধানমন্ত্রী
২৯৬

বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

খালিদ মাহমুদ খান

প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০১৮  

বিশ্বে বর্তমানে স্বাধীন দেশের সংখ্যা ১৯৫ টি কিন্তু এদের মধ্যে সেসব দেশের সংখ্যাই যেন বেশি যাদের মাথাপিছু আয় উন্নত দেশগুলোর তুললায় খুবই কম।আবার এদের মধ্যে কিছু দেশ রয়েছে যাদের জীবনমান আমাদের কল্পনাকেও হার মানাবে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের তথ্য অনুযায়ী বিশ্বের ১০ টি দরিদ্র দেশ সম্পর্কে চলুন জেনে নেই-

১০. মাদাগাস্কার

 

1.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম দ্বীপগুলোর মধ্যে মাদাগাস্কার দেশটির অবস্থান দক্ষিণ-পূর্ব আফ্রিকা মহাদেশের উপকূলে। এই দ্বীপটি মালাগাছি নামে পরিচিত। দেশটির রাজধানীর নাম আনতানারিবো। ৫ লাখ ৮৭ হাজার ৪১ বর্গকিলোমিটার আয়তনের দেশটিতে প্রায় আড়াই কোটি মানুষের বসবাস। ১৯৬০ সালে স্বাধীন হওয়ার আগে মাদাগাস্কার ছিলো ফ্রান্সের অধীনে। দূর্বল অবকাঠামো, অশিক্ষা, দূর্বল স্বাস্থ্যখাত ইত্যাদি নানা কারণে দেশটির ৬৯ ভাগ মানুষ আন্তর্জাতিক দারিদ্র সীমার নিচে বাস করে। রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতাও দেশটির দূর্বল অর্থনীতির অন্যতম কারণ। দেশটির মাথাপিছু আয় ১ হাজার ৫৫৪ মার্কিন ডলার।

৯. দক্ষিণ সুদান

 

2.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

দক্ষিণ সুদান রয়েছে এই তালিকার নয় নম্বরে। দেশটির বর্তমান রাজধানীর নাম জুবা। ৬ লাখ ১৯ হাজার ৭৪৫ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এই দেশটিতে জনসংখ্যা ১ কোটি ২৩ লাখের মতো। ১৯৫৬ সালের আগ পর্যন্ত দেশটি ছিলো সুদানের অধীনে এবং মিশরের শাসনাধীন। অতঃপর দুটি গৃহযুদ্ধের পর ২০১১ সালে স্বাধীনতা অর্জন করে এই দেশটি। দূর্বল অবকাঠামো, মাতৃমৃত্যু এবং অশিক্ষা এসব কারণে দেশটি বিশ্বের অনুন্নত দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম। বিভিন্ন প্রাকৃতিক সম্পদে ভরপুর হলেও দেশটির অর্থনীতি এখনও কৃষিনির্ভর। দেশটির মাথাপিছু আয় ১ হাজার ৫০৩ মার্কিন ডলার।

৮. ইরিত্রিয়া

 

3.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

উত্তর-পূর্ব আফ্রিকার ইরিত্রিয়া রয়েছে আট নম্বরে। দেশটির রাজধানীর নাম আজমারা। ইতালি, যুক্তরাজ্য এবং পরবর্তীতে ইথিওপিয়ার শাসনাধীন ছিল এই দেশটি। ১৯৯৩ সালে স্বাধীনতা অর্জন করে দেশটি। ১ লাখ ১৭ হাজার ০৬ বর্গকিলোমিটারের দেশটির জনসংখ্যা প্রায় ৫০ লাখের মতো। দেশটির ৮০ শতাংশ মানুষ কৃষিকাজের সঙ্গে জড়িত কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে চলা গৃহযুদ্ধের কারণে মারাত্নকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল এই খাতটি। যদিও সম্প্রতি সোনা এবং রূপা শিল্পের খনিগুলোতে কাজ শুরু হয়েছে পুরোদমে এবং সিমেন্ট শিল্পের মতো ভারী শিল্পের উন্নয়ন দেশটির অর্থনীতিকে বেশ গতিশীল করেছে। দেশটির মাথাপিছু আয় ১ হাজার ৪৩৪ মার্কিন ডলার।

৭. মোজাম্বিক

 

4.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

পূর্ব আফ্রিকার দেশ মোজাম্বিকের রাজধানীর নাম মাপুতু। ৮ লাখ ১ হাজার ৫৯০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের দেশটিতে জনসংখ্যা ২ কোটি ৮৯ লাখের মতো। দেশটিতে প্রচুর প্রাকৃতিক সম্পদ থাকলেও কৃষিনির্ভরই রয়ে গেছে দেশটির অর্থনীতি। তবে খাদ্য, অ্যালুমিনিয়াম বা পেট্রোলিয়াম নির্ভর শিল্প ক্রমশই বাড়ছে। তা স্বতেও দূর্বল সরকার, স্বাস্থ্যখাত এবং অশিক্ষা এসব কারণে দেশটির বেশিরভাগ মানুষ বাস করে দারিদ্রসীমার নিচে। ২০১১ সালের তথ্য অনুযায়ী, দেশটির ১৭ লাখ মানুষ এইচআইভি এইডসে আক্রান্ত। দেশটির জনগণের মাথাপিছু আয় ১ হাজার ২৬৬ মার্কিন ডলার।

৬. মালাউই

 

5.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

দক্ষিণ পূর্ব আফ্রিকার দেশ রিপাবলিক অফ মালাউই বা মালাউই রয়েছে বিশ্বের গরীব দেশগুলোর তালিকার ৬ নম্বরে। দেশটির রাজধানীর নাম ইলঙ্গ। দেশটি পূর্বে পরিচিত ছিলো নিয়াসাল্যান্ড নামে। ১৯৬৪ সালে স্বাধীনতা অর্জনকারী এই দেশটির বর্তমান জনসংখ্যা ১ লাখ ১৮ হাজার ৪৮৪ বর্গকিলোমিটার। বর্তমানে দেশটির জনসংখ্যা ১ কোটি ৮১ লাখের মতো। দেশটির এক-তৃতীয়াংশ জায়গা দখল করে রয়েছে লেক মালাউই। অন্যান্য অনেক সমস্যার মধ্যে অধিক শিশুমৃত্যু এবং এইডসের আক্রান্তের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য। ২০১৫ সাল পর্যন্ত দেশটির ৯ লাখ ৮০ হাজার বা ৯ দশমিক ১ শতাংশ মানুষ এইডসে আক্রান্ত। দেশটির জনগণের মাথাপিছু আয় ১ হাজার ১৭২ মার্কিয় ডলার।

৫. নাইজার

 

6.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

বিশ্বের সবচেয়ে গরীব দেশের তালিকায় নাইজার রয়েছে ৫ নম্বরে। ১২ লাখ ৭০ হাজার আয়তনের দেশটির রাজধানীর নাম নিয়ামে। পশ্চিম আফ্রিকার সবচেয়ে বড় দেশ হলেও এই দেশটির ৮০ শতাংশ জায়গা ঘিরে রয়েছে সাহারা মরুভূমির রুক্ষ এবং অনুর্বর দখলদারিত্ব। দেশটির দক্ষিণে উর্বর মাটিতে চাষবাস করা হলেও অতিরিক্ত খরা এবং প্রাকৃতিক মরুকরণের কারণে হুমকির মুখে রয়েছে দেশটির কৃষিখাতও। দেশটি থেকে ইউরেনিয়ামের আকরিক রপ্তানি করা হলেও এই অর্থনীতি দেশটির বিপুল পরিমাণ জনসংখ্যার জন্য পর্যাপ্ত নয়। ২ কোটি ৬ লাখ ৭২ হাজার জনসংখ্যার এই দেশটিকে মোকাবেলা করতে হচ্ছে খরার মতো প্রাকৃতিক দূর্যোগ সেই সঙ্গে অধিক জন্মহার, অদক্ষ জনশক্তিসহ নানা প্রতিবন্ধকতা। দেশটির মাথাপিছু আয় ১ হাজার ১৫৩ মার্কিন ডলার।

৪. লাইবেরিয়া

 

7.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

আটলান্টিক মহাসাগরের উপকূলে ছোট্ট একটি দেশ লাইবেরিয়া। দেশটির রাজধানীর নাম মনোরোভিয়া। আফ্রিকা মহাদেশের পশ্চিমে অবস্থিত দেশটির আয়তন ১ লাখ ১১ হাজার ৩৬৯ বর্গকিলোমিটার এবং জনসংখ্যা ৪৫ লাখ ০৩ হাজারের মতো। উনিশ শতকে স্বাধীনতা পাওয়া মার্কিন কৃষ্ণাঙ্গ দাসেরা এই দেশটি প্রতিষ্ঠা করেছিলো। দেশটির অর্থনীতি ধ্বসে পড়ে মুলত ১৪ বছর ধরে চলা গৃহযুদ্ধের কারণে যা ২০০৩ সালে শেষ হয়। কৃষিপ্রধান দেশটির বেশিরভাগ মানুষ বাস করে গ্রামাঞ্চলে। অশিক্ষা, দূর্নীতি বা দূর্বল সরকার ব্যবস্থার কারণে দেশটির উন্নয়ন বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। ২০১৪ সালে ইবোলা ভাইরাস দেশটিতে চরম মাত্রায় ছড়িয়ে পড়েছিলো যা পরবর্তীতে হুমকির মুখে ফেলে দেয় দেশটির অর্থনীতিকে। বর্তমানে দেশটির ৮৫ ভাগ মানুষ আন্তর্জাতিক দারিদ্রসীমার নিচে বাস করে। লাইবেরিয়ার মাথাপিছু আয় ৮৬৭ মার্কিন ডলার।

৩. বুরুন্ডি

 

8.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

পূর্ব আফ্রিকার দেশ বুরুন্ডি রয়েছে তালিকার তিন নম্বরে। দেশটির রাজধানীর নাম বুজুম্বুরা। মাত্র ২৭ হাজার ৮৩৪ বর্গকিলোমিটারের দেশটিতে ১ কোটি ৫২ লাখেরও বেশি মানুষের বাস। রাজনৈতিক এবং সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার কারণে দেশটির অর্থনীতি খুবই দুর্বল এবং ৯০ শতাংশ মানুষ কৃষিকাজের সঙ্গে জড়িত। যদিও দূর্বল অবকাঠামো এবং খরার মতো প্রাকৃতিক দূর্যোগ এর কারণে এই খাতটিও বেশ জরাজীর্ণ। অশিক্ষা, দূর্বল সরকার, এইডসের আক্রমণ ছাড়াও ক্রমাগত দুর্ভিক্ষ ইত্যাদি কারণে দেশটির ৮০ ভাগ মানুষই দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে। দেশটির মাথাপিছু আয় ৮০৮ মার্কিন ডলার।

২. কঙ্গো

 

9.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

বিশ্বের সবচেয়ে দরিদ্র দেশের তালিকায় ২য় অবস্থানে রয়েছে গণতান্ত্রিক কঙ্গো প্রজাতন্ত্র। পূর্বে দেশটি পরিচিত ছিলো জায়ার নামে। ২৩ লাখ ৪৫ হাজার ৪০৯ বর্গকিলোমিটারের দেশটির রাজধানীর নাম কিনসাসা। দেশটিতে ৭ কোটি ৮৭ লাখ লোকের বাস। প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ দেশটির উন্নয়ন ব্যহত হচ্ছে মূলত রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা এবং ব্যাপক দূর্নীতির কারণে। কঙ্গোর মাটির নিচে হীরা, কোবাল্ট, তামার ব্যাপক সঞ্চয় থাকার পরেও দেশটির বেশিরভাগ মানুষ বাস করে চরম দারিদ্রের মধ্যে। দূর্বল স্বাস্থ্যখাত ছাড়াও দেশটির ১ দশমিক ১ শতাংশ মানুষ আক্রান্ত এইডসে। কঙ্গোর মাথাপিছু আয় ৭৮৫ মার্কিন ডলার।

১. মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র

 

10.বিশ্বের দশ অনুন্নত দেশ

বিশ্বের সবচেয়ে দরিদ্র দেশ মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্র আফ্রিকা মহাদেশের মধ্যভাগে অবস্থিত। দেশটির রাজধানীর নাম বাঙ্গি। ৬ লাখ ২২ হাজার ৯৮৪ বর্গকিলোমিটার আয়তনের দেশটিতে ৪৬ লাখের মতো মানুষের বাস। মূলত শিক্ষা ও সচেতনতার অভাবেই দেশটির উন্নয়ন বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। ১৯৬০ সালে ফ্রান্সের কাছ থেকে স্বাধীনতা লাভ করলেও পরবর্তী সময়জুড়ে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা, হানাহানি এবং গৃহযুদ্ধ দেশটির অর্থনীতিকে পঙ্গু করে রেখেছ। দেশটিতে হীরা এবং সোনাসহ অন্যান্য প্রাকৃতিক সম্পদ রয়েছে প্রচুর পরিমাণে। দেশটির মাত্র ৪ শতাংশ জমিতে কৃষিকাজ করা সম্ভব হয় সেইসঙ্গে দেশটির ৪ দশমিক ৭ শতাংশ মানুষ এইডসে আক্রান্ত। দেশটির মাথাপিছু আয় ৬৮১ মার্কিন ডলার।

এই বিভাগের আরো খবর