বুধবার   ১৭ জুলাই ২০১৯   শ্রাবণ ২ ১৪২৬   ১৪ জ্বিলকদ ১৪৪০

amar24.com|আমার২৪
সর্বশেষ:
এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রের ২শ’ গজের মধ্যে জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ ‘এরশাদের শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে’ ওয়ান ইলেভেনে আশরাফের বলিষ্ঠ ভূমিকা ছিল : প্রধানমন্ত্রী
২১৬

অনুমোদন পেল আরও তিন ব্যাংক

প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯  

ব্যাংক খাত নিয়ে বিভিন্ন পক্ষের সমালোচনার মধ্যে আরও তিনটি নতুন ব্যাংকের অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। পাঁচশ' কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধনের শর্তে বেঙ্গল, সিটিজেন এবং পিপলস ব্যাংকের সম্মতিপত্র (এলওআই) দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সর্বশেষ অনুমোদিত ব্যাংকগুলোর মূলধনের শর্ত ছিল চারশ' কোটি টাকা। তবে পরিস্থিতি বিবেচনায় এবারে মূলধন বাড়ানোর শর্ত দেওয়া হয়েছে। এসব ব্যাংক কার্যক্রমে আসলে দেশে মোট তফসিলি ব্যাংকের সংখ্যা দাঁড়াবে ৬২টি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের কয়েকটি সভা থেকে এসব ব্যাংকের প্রস্তাব ফেরত পাঠানো হলেও রোববার রাতে ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সভায় এই তিনটি ব্যাংকটির কার্যক্রম শুরুর চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়। গভর্নর ফজলে কবিরের সভাপতিত্বে বৈঠকটি বিকাল ৫টায় শুরু হয়ে শেষ হয় রাতে সাড়ে ৮টায়।

বর্তমান সরকারের টানা তিন মেয়াদে এ নিয়ে ১৪টি ব্যাংকের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিশেষ আইনে গঠিত প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংককে গতবছর তফসিলি ব্যাংক হিসেবে অনুমোদন দেওয়া হয়।

এলওআই পাওয়া তিন ব্যাংকের মধ্যে- বেঙ্গল ব্যাংকের চেয়ারম্যান হিসাবে নাম রয়েছে বেঙ্গল গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিনের। তিনি এফবিসিসিআইর সাবেক ভাইস-চেয়ারম্যান এবং সংসদ সদস্য মোরশেদ আলমের ভাই। সিটিজেন ব্যাংকের চেয়ারম্যান আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের মা জাহানারা হক। পিপলস ব্যাংকের চেয়ারম্যান হিসাবে আছেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতা এমএ কাশেম। তার গ্রামের বাড়ি চট্রগ্রামের সন্দীপে।

বৈঠক শেষে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আবু ফরাহ মো. নাছের সাংবাদিকদের বলেন, সার্বিক তথ্য পর্যালোচনা করে তিনটি ব্যাংকের এলওআই দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পরিচালনা পর্ষদ। তবে ব্যাংকগুলোর ন্যূনতম পরিশোধিত মূলধন হতে হবে পাচশ' কোটি টাকা।

সর্বশেষ গত অক্টোবরে পুলিশ কল্যাণ ট্রাস্টের মালিকানায় 'কমিউনিটি ব্যাংক বাংলাদেশ'কে অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এর আগে ২০১৬ সালের ১ নভেম্বর বিজিবি ওয়েলফেয়ার ট্রাস্টের মালিকানায় সীমান্ত ব্যাংকের যাত্রা শুরু হয়। আর আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ২০১৩ সালে ৯টি ব্যাংক অনুমোদন পায়। এছাড়া চলতি বছর প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংককে বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে রুপান্তরের অনুমোদন দেওয়া হয়।

এই বিভাগের আরো খবর